মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
অগ্রগতি সংস্থা

 

  • জেলায় কাজের শুরু: ১৯৯৬ সাল থেকে
  • অবস্থান: থানাঘাটা সড়ক, মিলবাজার, সাতক্ষীরা
  • কাজের বিবরণ:

১৯৯৮ সালে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ধ্বংসাত্নক ঘূর্নিঝড় আঘাত হানে যার ফলে লক্ষাধিক ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়, ফসল বিনষ্ট হয় এবং ৩০০০ বেশি মানুষ মারা যায়। সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নে একদল যুবক স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে শুধুমাত্র ক্ষতিগ্রস্থদের ভেঙে পড়া বাড়ি পূননির্মানের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করে না, তাদের পরিবেশ রক্ষার জন্য উদ্যোগ গ্রহন করে। একই বছরে তারা একটি সামাজিক সংগঠন অগ্রগতি ক্লাব গঠন করে।

 

     শুরু থেকেই প্রতিষ্ঠানটি মানবাধিকার ও জলবায়ু সুরক্ষার অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য বিভিন্ন স্থানীয় ও জাতীয় সভা, কর্মশালা এবং সেমিনারে অংশগ্রহন করে। ১৯৯৪ সালে “কৃষ্ণনগর উন্নয়ন ফোরাম” গঠন করে বিভিন্ন ধ্বংসাত্নক কাজের প্রতিরোধের জন্য। এই ফোরাম জীব-বৈচিত্র সুরক্ষার জন্য এলাকার ৭০০ নারী ও পুরুষকে প্রশিক্ষণ প্রদান করে। একই সময়ে অগ্রগতি ক্লাব নারীদের অধিকার সংরক্ষনের জন্য “নারী সদস্য সংগঠন” তৈরী করে।

 

     ১৯৯৯ সালে সমাজ সেবা অধিদপ্তর এবং ২০০৪ সালে এনজিও ব্যুরো থেকে নিন্ধনকৃত হয়ে অগ্রগতি সংস্থাপানি ও স্যানিটেশন, এসিড সহিংসতা, সুশাসন, ঋণ প্রদান এবং মানব পাচার প্রতিরোধে কাজ করার শক্তি অর্জন করে।

 

     দীর্ঘ ২০ বছরের অভিজ্ঞতায় সংস্থা উন্নয়নের সুনির্দিষ্ট পথে অগ্রগামী হতে থাকে এবং সরাসরি সেবা প্রদান বা ঋণ প্রদানের পরিবর্তে অংশগ্রহন, অধিকার প্রতিষ্ঠা, সমতা এবং দায়িত্বশীলতার মাধ্যমে অধিকার ভিত্তিক কৌশলে কাজ করতে থাকে। বর্তমানে সুশাসন প্রতিষ্ঠা, শিশু অধিকার সুরক্ষা, স্বাধীনতা রক্ষা এবং জলবায়ুর সুক্ষা বিষয়ে কাজ করছে।

 

     সর্বপরি অগ্রগতি সংস্থার শ্লোগান হচ্ছে- “সুশাসন চর্চার মাধ্যমে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার একটি উদ্যোগ”।

 

     আইনগত কাঠামো:

  • সামজসেবা অধিদপ্তর- নিবন্ধন নম্বর- সাত-২৭৮/৯৯
  • এনজিও বিষয়ক ব্যুরো- নিবন্ধন নম্বর- ১৯৬৩/২৩.০৯.০৪
  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

০১) এসিড আক্রান্তদের সহায়তা:

·         চিকিৎসা সেবা:এসিড আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য এসিড সারভাইভারস ফাউন্ডেশনের নিজস্ব হাসপাতাল “নয়নতারা” তে পাঠানো হয়। চিকিৎসা এবং হাসপাতালে পাঠানো সমুদয় খরচ বিনামূল্যে প্রদান করা হয়। যে কোন এসিড আক্রান্ত রোগী অগ্রগতি সংস্থার সাথে যোগাযোগ করলে বা নতুন এসিড সহিংসতার সংবাদ জানতে পারলে অগ্রগতি সংস্থা নিজ উদ্যোগে চিকিৎসা সেবা প্রদানে ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

·          আইনগত সহায়তা:এসিড আক্রান্ত ব্যক্তি বা পরিবার আইনগত সহায়তার জন্য অগ্রগতি সংস্থার কাছে আবেদন করলে এসিড সারভাইভারস ফাউণ্ডেশনের নিজস্ব আইনজীবিদের দ্বারা সম্পূর্ণ বিনা খরচে আক্রান্তদের কে আইনগত সহায়তা প্রদান করা হয়।

·         পূণর্বাসন:এসিড আক্রান্তদের সামাজিক ও আর্থিক পূণর্বাসনের সেবা প্রদান করা হয়। সামাজিক পূণর্বাসনের জন্য এলাকায় জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়। আর্থিক পূণর্বাসনের জন্য এসিড আক্রান্তদের আয়বৃদ্ধিমূলক কাজের জন্য (জমি বন্ধক, গরু পালন, ক্ষুদ্র ব্যবসা ইত্যাদি)সংস্থার পক্ষ থেকে নগদ অর্থ অথবা ঐ সকল কাজের উপকরণ প্রদান করা হয় এবং বসবাসের ঘর তৈরী করে দেওয়া হয়। এছাড়াও অগ্রগতি সংস্থায় কর্মী হিসেবে তাদের চাকরীর ব্যবস্থা করা হয় এবং অন্য প্রতিষ্ঠানে কাজের ব্যবস্থা করা হয়।

 

০২) পাচারকৃত ব্যক্তির উদ্ধার ও পূণর্বাসনের প্রক্রিয়া করণ:কোন ব্যক্তির পাচারের সংবাদ পাওয়া গেলে সংস্থা স্থানীয় প্রশাসন, স্থানীয় সরকার এবং গঠিত কমিটির মাধ্যমে উদ্ধার করে এবং পূণর্বাসনের জন্য এই কাজে নিয়োজিত বিভিন্ন বেসরকারী পূণর্বাসন কেন্দ্রে প্রেরণ করে।

০৩) ইউনিয়ন তহবিল গঠন ও দরিদ্রদের আয়বৃদ্ধিমূলক সহায়তা:জেলার ১৬টি ইউনিয়নে দরিদ্র জনগণের আয়বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রমের জন্য ইউনিয়ন তহবিল গঠন করা হয়েছে।সামাজিক উদ্যোগ ফোরামের মাধ্যমে প্রাপ্ত নাম তহবিল পরিচালনা কমিটি যাচাই বাছাই করে দরিদ্র জনগণকে আয়বৃদ্ধিমূলক কাজে সহায়তা করে।

        ০৪) গৃহকর্মেরত শিশুর সেবা:

·   শিক্ষা সহযোগিতা:গৃহকর্মেরত শিশুদের জন্য পৃথক বিদ্যালয় পরিচালনা এবং শিক্ষা গ্রহণের জন্য শিশুদের শিক্ষা উপকরন প্রদান করা হয়।

·   কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি:গৃহকর্মেরত শিশুদের বিশেষভাবে ঝুকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত শিশুদের বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য কারিগরি প্রশিক্ষণ (দর্জি, বিউটি পার্লার, মোবাইল সার্ভিসিং প্রভৃতি)প্রদাণ করে বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হয়।

·   স্বাস্থ্য সেবা:গৃহকর্মেরত শিশুদের স্বাস্থ্য পরামর্শ ও প্রয়োজনীয় ঔষধ প্রদান করা হয় বিনামূল্যে।

·   মনোসামাজিক সহায়তা:গৃহকর্মেরত শিশুদের মানসিক বিকাশের জন্য এবং নিজ অবস্থা উন্নয়নে মানসিকতা পরিবর্তনের জন্য কাউন্সিলরের মাধ্যমে মনোসামাজিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

·   জীবন দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ:গৃহকর্মেরত শিশুদের জীবন দক্ষতা উন্নয়নে ১২ টি পর্বে প্রশিক্ষণ প্রদান করে জীবন দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ে দক্ষ করে তোলা হয়।

·   গৃহকর্মেরত শিশুদের রেজিষ্ট্রেশন:কোন শিশু গৃহকর্মে নিয়োজিত হওয়ার পূর্বে তার নিজস্ব ইউনিয়ন পরিষদ থেকে রেজিষ্ট্রেশন করার জন্য সহযোগিতা প্রদান করা হয়।

০৫)   কিশোরীদের জীবনমান সহযোগিতা:

·   আয়বৃদ্ধিমূলক সহযোগিতা:দরিদ্র ও বঞ্চিত কিশোরীদের আয়বর্ধক কাজে নিয়োজিত করবার জন্য কিশোরী সম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্রের মাধ্যমে আয়বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ এবং উপকরণ সহযোগিতা প্রদান করা হয়।

·   স্বাস্থ্য সেবা:কিশোরীদের স্বাস্থ্য প্রজনন এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের জন্য বিশেষজ্ঞ চিকৎসক দ্বারা পরামর্শ প্রদান করা হয় এবং ঔষধ ও অন্যান্য উপকরণ সহযোগিতা প্রদান করা হয়। এছাড়াও কিছু কিশোরীকে স্বাস্থ্যপরিচর্যা, স্যানিটেশন, স্বাস্থ্যাভ্যাস বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয় যারা গ্রামের অন্যান্য কিশোরী ও নারীদের এই বিষয়ে সচেতন করে।

·   শিক্ষা সহযোগিতা:কিশোরীদের শিক্ষাথেকে ঝরে পড়া রোধ করা এবং অব্যহত শিক্ষা পরিচালনার জন্য শিক্ষা উপকরণ প্রদান করা হয় এবং লাইব্রেরীর মাধ্যমে শিক্ষা গ্রহনের সুযোগ প্রদান করা হয়।

·   ব্যবসা বৃত্তি প্রদান:দরিদ্র কিশোরীদের আয়বৃদ্ধিমূলক কাজের পাশাপাশি শিক্ষা পরিচালনার জন্য সহযোগিতা করতে তাদের দলীয় ভাবে ব্যবসা পরিচালনার জন্য বৃত্তি প্রদান করা হয়।

০৬)   স্থানীয় সমস্যা সমাধানে স্বেচ্ছা উদ্যোগ গ্রহণের সহযোগিতা:

স্থানীয় বিভিন্ন ছোট ছোট অবকাঠামোগত, সামাজিক বা অন্যান্য সমস্যা সমাধানে জনগণের উদ্যোগ গ্রহণে উদ্ধুদ্ধ করার জন্য জনগণকে সংগঠিত করা, স্থানীয় সম্পদ আহরোনে সহযোগিতা এবং সংস্থার মাধ্যমে সহযোগিতা প্রদান করে জনগণের স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে স্থানীয় সমস্যা সমাধান করা হয়।

০৭)  বন্যাক্রান্ত এলাকার শিশুদের মানসিক ও শিক্ষা সহযোগিতা: বন্যাক্রান্ত এলাকার শিশুদের বন্যাকালীন সময়ে মানসিক বিকাশ এবং শিক্ষা অব্যহত রাখার জন্য শিশুবান্ধব কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে ঐ সকল শিশুদের সেবা প্রদান করা হয়।

০৮)  স্থানীয় সরকার বিষয়ে কারিগরি সহযোগিতা:স্থানীয় সরকারের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা  নিশ্চিত করণ, জনঅংশগ্রহণ বৃদ্ধি, জনঅংশগ্রহণের মাধ্যমে পরিকল্পনা প্রনয়ণ, স্থানীয় উন্নয়ন কাজে জনগণের মনিটরিং, পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রস্তুত, জনঅংশগ্রহণের মাধ্যমে বাজেট প্রস্তুত, স্থানীয় সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের সমন্বয়করণ, স্থানীয় সেবাদানকরী প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম মনিটরিং সহ স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় কারিগরি সেবা প্রদান করা হয়।

 

  • সরকার ঘোষিত বা অন্যান্য ছুটির দিন ব্যতীত সকাল ০৯:০০ ঘটিকা থেকে বিকাল ০৫:০০ ঘটিকা পর্যন্ত অফিস চলাকালীন সময়ে সেবা প্রদান করা হয়।
  • সংস্থার প্রধান কার্য্যালয় সহ সকল শাখা অফিস, কিশোরী সম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র, কমিউনিটি ভিত্তিক শিক্ষা কেন্দ্র এবং সামাজিকীকরণ কেন্দ্র থেকে সেবা প্রদান করা হয়।
  • বাস্তবায়িত প্রকল্পের কর্মীবৃন্দ স্ব স্ব প্রকল্পের নির্ধারিত সেবা প্রদান করে থাকে।
  • স্থানীয় সরকার বিষয়ক সেবা: স্থানীয় সরকারের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করণ, জনঅংশগ্রহণ বৃদ্ধি, জনঅংশগ্রহণের মাধ্যমে পরিকল্পনা প্রনয়ণ, স্থানীয় উন্নয়ন কাজে জনগণের মনিটরিং, পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রস্তুত, জনঅংশগ্রহণের মাধ্যমে বাজেট প্রস্তুত, স্থানীয় সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের সমন্বয়করণ, স্থানীয় সেবাদানকরী প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম মনিটরিং সহ স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় কারিগরি ও আর্থিক সহায়তা।
  • পাচারকৃত ব্যক্তির উদ্ধার ও পূণর্বাসনের প্রক্রিয়া করণ ও পূণর্বাসন কেন্দ্রে প্রেরণ করা।
  • ০৩) ইউনিয়ন তহবিল গঠন ও দরিদ্রদের আয়বৃদ্ধিমূলক কাজে সহায়তা করা।
  • গৃহকর্মেরত শিশুর শিক্ষা সহযোগিতা,কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি,স্বাস্থ্য সেবা,মনোসামাজিক সহায়তা,জীবন দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ,গৃহকর্মেরত শিশুদের রেজিষ্ট্রেশন সহযোগিতা প্রদান করা হয়।
  • কিশোরীদের জীবনমান উন্নয়নে আয়বৃদ্ধিমূলক সহযোগিতা,স্বাস্থ্য ও প্রজনন সেবা,শিক্ষা সহযোগিতা,ব্যবসা বৃত্তি প্রদান করা হয়।
  • স্থানীয় সমস্যা সমাধানে স্বেচ্ছা উদ্যোগ গ্রহণের সহযোগিতা করা হয়।
  • বন্যাক্রান্ত এলাকার শিশুদের মানসিক ও শিক্ষা সহযোগিতা করা হয়।
  • শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান মনষ্ক করার জন্য সহযোগিতা করা হয়।
  • স্বাস্থ্য, স্যানিটেশন ও নিরাপদ পানি নিশ্চিত করণে কারিগরি ও আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করা হয়।
  • জলবায়ু পরিবর্তন রোধ এবং দূর্যোগকালীন সময়ে ত্রাণ ও পূণর্বাসন সহযোগিতা প্রদান করা হয়।
  • বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা প্রতিরোধ, সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং মানবাধিকার সুরক্ষার জন্য জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়।

ছবি নাম মোবাইল
আব্দুস সবুর বিশ্বাস ০১৭১৫৬০৮৮৬৪

ছবি নাম মোবাইল
আব্দুস সবুর বিশ্বাস ০১৭১৫৬০৮৮৬৪

ছবি নাম মোবাইল
মো: আরিফুর রহমান

 

  • স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতামূলক স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠা প্রকল্প
  • উপকারভোগীদের মাধমে বিশ্বব্যাংকের প্রকল্প সমূহ মনিটরিং
  • প্রাথমিক শিক্ষা ও সামাজিক নিরাপত্তায় কমিউনিটি স্কোর কার্ড
  • গৃহকর্মেরত শিশুদের নিরাপত্তা প্রকল্প
  • মানব পাচার প্রতিরোধে সমন্বিত উদ্যোগ প্রকল্প
  • জন অংশগ্রহনের মাধ্যমে যথার্থতা নিরুপন- পর্যবেক্ষন এবং নির্দেশনা প্রদান প্রকল্প (ভয়েস)
  • প্রতিরোধ এবং সম্পৃক্তকরণের জন্য এসিড সারভাইভারদের নেটওয়ার্ক
  • আদর্শ গ্রাম প্রতিষ্ঠার জন্য সামাজিক পরিবর্তন
  • নারীর অধিকার ও নারী পুরুষের সমতা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আন্দোলনকে শক্তিশালীকরণ প্রকল্প
  • মাধ্যমিক স্কুল পর্যায়ে বিজ্ঞান শিক্ষা ত্বরান্বিত করন প্রকল্প
  • সাতক্ষীরা জরুরী বন্যা পুর্নবাসন কার্যক্রম

সাতক্ষীরা বাসস্ট্যান্ড থেকে ভ্যান/রিক্সাযোগে সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়ক বরাবর ০২ কি:মি: যাওয়ার পর কোল্ডষ্টোরেজ মোড় (দাশপাড়া রোডে) নেমে ১০০ গজ পশ্চিম দিকে প্রধান কার্য্যালয় অবস্থিত। অথবা সাতক্ষীরা কেন্দ্রীয় জেলাখানা থেকে ৩৫০ গজ পশ্চিমে দাশপাড়া রোডে অবস্থিত।